coronavirus bd

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর । উপসর্গ, প্রতিকার ও চিকিৎসা

Coronavirus Update

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর, করোনা ভাইরাস কি ? করোনা ভাইরাসের উপসর্গ সমূহ, করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধে করণীয়, এর চিকিৎসা ও প্রতিকার সম্পর্কে সচেতনতা মূলক একটি চলমান প্রবন্ধ। বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস এর সংক্রমন মহামারী আকারে দেখা দিচ্ছে । দিনে দিনে এর বিস্তার ছড়িয়ে পড়ছে এদেশের অলিতে গলিতে। করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মারা যাচ্ছে অনেকেই। বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর সমূহ আইইডিসিআর কর্তৃক প্রদত্ত তথ্য মোতাবেক করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ তথ্য তুলে ধরা সচেতনতা সৃষ্টি করাই এই প্রবন্ধের মূল প্রয়াস। এছাড়া আপনি এই ওয়েব সাইট থেকে অতিরিক্ত যে সকল সুবিধা পাবেন তা হলো এখানে প্রথম থেকে চলমান সকল তথ্য সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

Health briefing live, coronavirus live, coronavirus live video, coronavirus live report, coronavirus bd live report, bangladesh coronavirus live, bangladesh coronavirus update, bangladesh iedcr report, bd corona virus update report: Live

গত ২৪ ঘন্টায় বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর, আক্রান্ত,

মৃতের সংখ্যা ও অন্যান্য তথ্য: ১৮/০৬/২০২০

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ৩৮০৩  জন মোট ১০২২৯২ জন এবং

মৃত্যু ৩৮  জন মোট ১৩৮৩ জন

১৮/০৬/২০২০

coronavirus bd on 18 june

১০/০৬/২০২০

coronavirus bd on 10 june

০৯-০৬-২০২০

coronavirus bd on 09 june

০১/০৬/২০২০

coronavirus bd on 01 june

৩১/০৫/২০

bangladesh coronavirus update

২৮/০৫/২০২০

bangladesh coronavirus update

২৭/0৫/২০২০

coronavirus bd

 

coronavirus bd on 23 may

coronavirus bd on 22 may

coronavirus-bd 21 may

২০/০৫/২০২০

coronavirus bd report on 20 may

১৯/০৫/২০২০

corona virus bangladesh

১৮/০৫/২০২০

coronaviurs new report bd

১৭/০৫/২০২০

corona update bd 17-5-20

১৬/০৫/২০২০

coronavirus update bd on 16-05-20

১৫/০৫/২০২০

coronavirus bangladesh new update

১৪/০৫/২০২০

corona virus update bd

১৩/০৫/২০২০

bangladesh coronavirus update report

coronavirus bangladesh update

১২/০৫/২০২০

coronavirus bangladesh

১১/০৫/২০২০

coronavirus bd on 11 may

১০/০৫/২০২০corona virus on 10 may

০৯/০৫/২০২০

coronavirus update on 9 may

০৮/০৫/২০

coronavirus bd update report

০৭/০৫/২০২০

coronavirus bd update report

০৬/০৫/২০২০

করোনা ভাইরাস আপডেট

 

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর, স্বাস্থ্য বুলেটিন (লাইভ) এবং আপডেট তথ্য সমূহ:

বাংলাদেশে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের সকল তথ্য

০৫/০৫/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর

০৪/০৪/২০২০

করোনা ভাইরাস

০৩/০৫/২০২০

coronavirus bangladesh

০২/০৫/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর

০১/০৫/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ১ মে

৩০/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ৩০ এপ্রিল

২৯/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৯ এপ্রিল

২৮/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৮ এপ্রিল ২০২০

২৭/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৭ এপ্রিল ২০২০

২৬/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৬ এপ্রিল ২০২০

২৫/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৫ এপ্রিল ২০২০

২৪/০৪/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের খবর ২৪ এপ্রিল ২০২০

২৩/০৪/২০২০

coronavirus bd

২২/০৪/২০২০

Bangladesh coronavirus update 22 april

২১/০৪/২০২০

corona virus bd report

২০/০৪/২০২০

corona virus bangaldesh

১৯/০৪/২০২০

corona virus situation report in bd

১৮/০৪/২০২০

corona virus information in bd

১৭/০৪/২০২০

corona info in bd

১৬/০৪/২০২০

bangladesh coronavirus update on 16 april

১৫/০৪/২০২০ রিপোর্ট

bangladesh coronavirus update on 15 april

১৪/০৪/২০২০ রিপোর্ট

bangladesh coronavirus update on 14 april

১৩/০৪/২০২০ রিপোর্ট

bangladesh coronavirus update on 13 april

১২/০৪/২০২০

coronavirus report in bd

১১/০৪/২০২০

coronavirus update

১০/০৪/২০২০

coronavirus bangladesh update

০৯/০৪/২০২০

bangladesh coronavirus update

০৮/০৪/২০২০

corona new update

 

করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশে প্রথম মৃত্যু

১৮/০৩/২০২০

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সমীকরণ

প্রথম থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত এক মাসের তথ্য এক সাথে

৮ মার্চ থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত এক মাসের তথ্য একটি ছকে পদত্ত হইল:

তারিখ 

নতুন আক্রান্ত 

মোট আক্রান্ত

২৪ ঘন্টায় মৃত্যু

মোট মৃত্যু

৮ মার্চ, ২০২০

প্রথম আক্রান্ত (০৩)

০৩

১৮/০৩/২০২০

১৮ তারিখ পর্যন্ত

মোট আক্রান্ত

১০

০১

০১

১৯/০৩/২০২০

০৩

১৩

০১

০২

২০/০৩/২০২০

০৩

১৬

২১/০৩/২০২০

০৪

২৪

০২

২২/০৩/২০২০

০৩

২৭

০২

২৩/০৩/২০২০

০৬

৩৩

০৩

২৪/০৩/২০২০

০৬

৩৯

০১

০৪

২৫/০৩/২০২০

৩৯

০১

০৫

২৬/০৩/২০২০

০৫

৪৪

০৫

২৭/০৩/২০২০

০৪

৪৮

০৫

২৮/০৩/২০২০

৪৮

০৫

২৯/০৩/২০২০

৪৮

০৫

৩০/০৩/২০২০

০১

৪৯

০৫

৩১/০৩/২০২০

০২

৫১

০৫

০১/০৪/২০

০৩

৫৪

০১

০৬

০২/০৪/২০

০২

৫৬

০৬

০৩/০৪/২০

০৫

৬১

০৬

০৪/০৪/২০

০৯

৭০

০২

০৮

০৫/০৪/২০

১৮

৯৯

০১

০৯

০৬/০৪/২০

০৫

১০৪

০৩

১২

০৭/০৪/২০

০৭

১১১

০৫

১৭

০৮/০৪/২০২০

৫৪

২১৯

০৩

২০

আসুন জেনে নিই করোনা ভাইরাস কি, এর সংক্রমন, বিস্তার

এবং প্রতিকার সম্পর্কে

করোনা ভাইরাস কি ?

নামেই এর পরিচয় এসে গেছে। এটি একটি ভাইরাস।  এটি একটি ফ্লাবিও ভাইরাস যা দ্রুত সংক্রমন ছড়াতে সক্ষম। ১৯৬০ সালে ১ম বারের মতো করোনা ভাইরাস আবিস্কার করা হয়, তবে কিভাবে এই ভাইরাসের উৎপত্তি তা জানা সম্ভব হয়নি। Corona শব্দের অর্থ জ্যোতির্বলয়। সূর্য থেকে ছিটকে পড়া আলোকরশ্মির ন্যায় হওয়ায় ভাইরাসটির নামকরণ করা করোনা ভাইরাস। মানুষ ও পশু-পাখি কখনো কখনো এই ভাইরাসটির দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে। শুরুরদিকে মুরগির মধ্যে সংক্রামক ব্রঙ্কাইটিস ভাইরাস হিসেবে এটি প্রথম প্রকাশ পায়। সাধারণ সদি-হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে এরকম দুই ধরনের ভাইরাস পাওয়া যায়।

করোনা ভাইরাসের বর্তমানটিসহ ৭টি প্রজাতি রয়েছে। ২০০২ ও ২০০৩ সালে মারাত্বক প্রার্দুভাবের পেছনে সার্স (সেভার অ্যাকিউট রিসপােইরেটরি সিনড্রোম) করোনা ভাইরাস ছিল। সার্সে প্রায় ৯ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয় এবং এর ৭৭৪ জনের মৃত্যু হয় । সার্স প্রাদুর্ভাবের এক দশক পর ২০১২ সালে মার্স (মিডল ইস্ট রিপাইরেটিরি সিনড্রোম) প্রাদুর্ভাব শুরু হয়, যা এখনো চলমান । মার্স ভাইরাসে ২ হাজার ৪৯৪ জন আক্রান্ত হয়, এর মধ্যে মারা যায় ৮৫৮জন, যার বেশির ভাগ ঘটনা ঘটে আরব উপদ্বীপে। উহানের নতুন করোনা ভাইরাস এ ভাইরাসগুলো থেকে আলাদা, তবে আগে কখনো এর প্রাদুর্ভাব মানুষের মধ্যে দেখা যায়নি।

করোনা ভাইরাসের উপসর্গ:

ভাইরাস শরীরে সংক্রমনের পর লক্ষণ দেখা দিতে সাধারণত প্রায় ২-১৪ দিন লাগেবেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রথম লক্ষণ জ্বর (১০০) ডিগ্রী ফারেনহাইট বা ৩৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসের বেশি) এছাড়া শুকনো কাশি/গলা ব্যথা হতে পারে শ্বাসকষ্ট/নিউমোনিয়া দেখা দিতে পারে অন্যান্য অসুস্থতা (ডায়াবেটিস/উচ্চ রক্তচাপ/শ্বাসকষ্ট/হৃদরোগ/কিডনী সমস্যা/ক্যান্সার ইত্যাদি) থাকলে অরগ্যান ফেইলিওর হতে পারে।

প্রাথমিক লক্ষণ সমূহ: করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষণ সমূহ সাধারণ সর্দি, কাশি, জ্বর, গলাব্যাথা ও  শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যার মতোই।

মারাত্বক আকার: ক্রমশ শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা বাড়তে থাকা। শুকনো কফ, মাংসপেশিতে ব্যাথা হবে, পেটে সমস্যা, নিউমোনিয়া দেখা দেয়া।

সংক্রমন পদ্ধতি বা যেভাবে ছড়ায়:

১ম ধাপ: শ্বাসতন্ত্রের মাধ্যমে হাঁচি, কাশি, কফ, সর্দি, থুতু এবং আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসলে একজন থেকে আরেকজনে ছড়ায় মূলত ভাইরাসটি ছড়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির ফুসফুস থেকে উৎপন্ন প্রদাহ কণা (রেসপিরেটরি ড্রপলেট) এর মাধ্যমে যা হাঁচি বা কাশির সাথে আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে (১-২মিটার পরিধির মধ্যে) বাতাসে কয়েক ঘন্টা পর্যন্ত ভাসমান অবস্থায় থাকতে পারে।

২য় ধাপ: এই রেসপিরেটরি ড্রপলেট এর সংস্পর্শে আসলে যেমন আক্রান্ত ব্যক্তির ১-২মিটার দূরত্বের কমে অবস্থান করলে সেই করোনাভাইরাস কণাযুক্ত বাতাসে কেউ যদি শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করে তাহলে তার বা একাদিক ব্যক্তি ফুসফুসেও শ্বাসনালী দিয়ে এই করোনা ভাইরাসগুলি প্রবেশ করতে পারে । আক্রান্ত ব্যক্তি তার পরিবেশে, আশপাশের কোথাও যে কোনও বস্তুর পৃষ্ঠতলে তার করোনাভাইরাসযুক্ত হাত দিয়ে স্পর্শ করে, তাহলে সেই পৃষ্ঠতলেই জীবাণূগুলো পরবর্তী একাধিক দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে।

৩য় ধাপ: ড্রপলেট ছড়িয়ে পড়া কোন তল (সারফেস ) বা ব্যবহার্য্য সামগ্রী (যেমন টেবিল, চেয়ার, দরজার হাতল ইত্যাদি) হাত দিয়ে ধরলে এবং খালি হাতে নামে মুখে বা চোখে হাত দিলে ভাইরাসটি সংক্রমণ ঘটাতে পারে।

৪র্থ ধাপ: তবে হাতে লাগলেই জীবাণুগুলো দেহের ভেতরে বা ফুসফুসকে সংক্রমিত করতে পারবে না যদি তিনি যেকোন পদ্ধতিতে হাত জীবানুমুক্ত করে ফেলেন। তবে তিনি যদি ভুলক্রমে ঐ জীবাণুযুক্ত হাতটি দিয়েই নাক-মুখ-চোখ স্পর্শ করে ফেলেন কেবল তখনই করোনাভাইরাসগুলো ঐসব এলাকার উন্মুক্ত শ্লেষ্মাঝিল্লী দিয়ে দেহের ভিতরে প্রবেশ করবে ও প্রথমে গলায় ও পরে ফুসফুসে বংশবিস্তার করা শুরু করবে। এজন্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে প্রতিটি অন্তবর্তী ধাপেই যদি করোনাভাইরাসকে প্রতিহত করা যায় তাহলে সফলভাবে এই ভাইরাস ও রোগের সংক্রমণ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

 

এর প্রতিকার:

করোনা ভাইরাসটি নতুন হওয়াতে এখনো পর্যন্ত এর কোনও টিকা বা প্রতিষেধক আবিস্কার হয়নি। । এমনকি এমন কোনও চিকিৎসাও নেই, যা এ রোগ ঠেকাতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ইতোমধ্যে মানুষকে যে পরামর্শ গুলো দিয়েছেন:

  • নিয়মিত হাত ভালোভাবে ধোয়া নিশ্চিত করার পরামর্শ দিয়েছেন, হ্যান্ড ওয়াস, সাবান দিয়ে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে হাত ধুতে হবে।
  • হাঁচি-কাশির সময় নাক-মুখ ঢেকে রাখা ।
  • ঠান্ডা ও ফ্ল আক্রান্ত মানুষ থেকে দূরে থাকারও পরামর্শ দিয়েছে এই সংস্থা।

ব্যক্তিগত সচেতনতা-

  • ইতোমধ্যে আক্রান্ত এমন ব্যক্তিদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে;
  • রোগাক্রান্ত পশু/পাখির সংস্পর্শ পরিহার করতে হবে;
  • মাছ-=মাংস ভালোভাবে রান্না করে খেতে হবে;
  • অসুস্থ হলে ঘরে অবস্থান করুন, বাইরে যাওয়া অত্যাবশ্যক হলে নাক-মুখ ঢাকার জন্য মাস্ক ব্যবহার কতে হবে;
  • যে কোন ভ্রমন থেকে বিরত থাকুন ।
  • প্রয়োজন ছাড়া যেকোনো জনসমাগম এড়িয়ে চলুন;
  • অত্যাবশ্যকীয় ভ্রমণে সাবধানতা অবলম্বন করুন।

বিজ্ঞানীরা বলছেন আপাতত প্রতিকার হিসেবে এ ভাইরাস বহনকারীদের সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে । ডাক্তারদের পরামর্শ-বারবার হাত ধোয়া, হাত দিয়ে নাক-মুখ স্পর্শ না করা ও  ঘরের বােইরে গেলে মুখোশ পরা। ,.;’

হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. গ্যাব্রিয়েল লিউং স্বাস্থ্য সম্পর্কিত এ নির্দেশনায় বলছেন, হাত সবসময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে, বারবার হাত ‍ধুতে হবে। হাত দিয়ে নাক বা মুখ ঘষবেন না, ঘরের বাইরে গেলে মুখোশ পরতে হবে। তিনি বলেন, ‘আপনি যদি অসুস্থ হয়ে থাকনে তাহলে মুখোশ পরূন, আর নিজে অসুস্থ না হলেও, অন্যের সংস্পর্শ এড়াতে মুখোশ পরূন’।

রোগী ও সন্দেহভাজনদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে:
স্বাস্থ্যকর্মীদেরকে যথাসম্ভব পূর্বসতর্কতা ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম(পিপিই) ব্যবহার করা;
স্বাস্থ্য সুরক্ষার কাজে নিয়োজিত কর্তাব্যক্তিদের জন্য ‘কন্টাক্ট ট্রেসিং একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধিতি যার মাধ্যমে সংক্রমনের উৎস খুজে বের করা যায় এবং ছড়িয়ে পড়াকে থামানো যায়।

 

এর প্রভাব:

এর প্রভাব দুই ভাবে তুলে ধরা যায়:

এক. আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে এর প্রভাব: এই ভাইরাস প্রাথমিক অবস্থায় আক্রমন করে খুবই স্বাভাবিক পর্যায়ে। এরপর এর প্রভাব ক্রমন্বয়ে বাড়তে থাকে। আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে জ্বর ও ডায়রিয়া বাড়তে থাকে, শুরু হয় মাথা ব্যাথা ও অবশাদ, চুড়ান্ত পর্যায়ে শ্বাস প্রশ্বাস ও নিউমোনিয়া। মাত্র অল্প কয়েকদিনের মধ্যে একজন সুস্থ্য ব্যক্তি এমন পর্যায়ে যায় যে, উনাকে ভেন্টিলেটরের সাহায্যে অক্সিজেন দিয়ে রাখতে হয়। এটি ফুসফসকে আক্রমন করে ফলে শ্বাসকষ্ট বৃদ্ধি পায় ।

দুই. চিনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে এই ভাইরাস উৎপত্তি হয়ে প্রথম দেখা দেয় ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং তারিখে অথচ অদ্য ২২-০৪-২০১৯ ইং তারিখ পর্যন্ত বিশ্বের ২১০টি দেশে এই ভাইরাস ছড়িয়ে এবং ১৭ লক্ষের উপরে আক্রান্ত হয় এবং মৃত্যুবরণ করেন ১ লক্ষ ৭৯ হাজারের উপরে। এই সমীক্ষণ কেবলমাত্র বিশ্বের সরকারী হিসাব। শুধুমাত্র আমেরিকাতে এপর্যন্ত ৬১ হাজরেরও বেশি লোক মারা যায় । এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা আমেরিকার পর ইউরোপের দেশগুলোতে বেশি লক্ষ করা যায়। ইটালীতে ২৭ হাজারের বেশি, স্পেন ২৪ হাজারেরও বেশি ফ্রান্স ২৪ হাজারেরও বেশি এবং যুক্তরাজ্যে ২৬ হাজারের বেশি লোক মারা গেছে। মোট ২১০টি দেশের মধ্যে প্রথম ৫টি দেশের পর বাকী দেশগুলোর মৃতের সংখ্যা তুলনামূলক অনেক কম।

 

এর ঔষধ আবিস্কার হয়েছে কি ?

সমগ্র পৃথিবীর মানুষ এখন ভীত সন্ত্রস্ত, কাতর, নতজানু এই করোনা ভাইরাসের দাপটে। সমগ্র পৃথিবীতে মানুষ বর্তমানে অনেকটাই বদলে যাচ্ছে। অনেকাংশে থেমে গেছে যুদ্ধ বিগ্রহ, পাপ পঙ্কিলতা, অবাধ মেলামেশা, মদ, জুয়া, ক্যাসিনোর আসর ইত্যাদি। সৃষ্টিকর্তাই জানেন তিনি কতটুকু পরিবর্তন হলে এই ভাইরাসকে উঠিয়ে নিয়ে যাবেন যার সঠিক চিকিৎসা পদ্ধতির ফরমুলাও মানুষের মাথায় এখানো দেননি।

করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় ভেকসিন আবিস্কারকরোনা ভাইরাসের টিকা বা ঔষধ তৈরীতে সচেষ্ট সব রাষ্ট্র

যুদ্ধ বিরতি:

stop war for coronavirusসৌদি ও ইয়েমেনের যুদ্ধ বিরতির ঘোষনা

করোনা ভাইরাসে বিচ্ছিন্ন করণ:

seperate to child from motherমানুষ মানুষ থেকে বিচ্ছিন্ন থাকাই হলো করোনা ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার উপায়।

লক ডাউন:

দেখা যাচ্ছে যে, আজ সারা পৃথিবী প্রায় লক ডাউনে আছে। বাংলাদেশে ও বিশ্বের অন্যান্য দেশে মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে দিনকে দিন। ব্যস্ততম শহলগুলো আজ ফাকা, সেখানে মুক্ত পাখিগুলো একটু সস্তির সহিত ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। মানুষের পার্কগুলোতে বন্য প্রানিরা বিচরন করছে স্বাধীন ভাবে। বাংলাদেশেও তার ব্যতিক্রম নয়। সমুদ্রের লফিনগুলোকে দীর্ঘ ২৮ বছর পর ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে মানব শূণ্য সৈকতে। দীর্ঘ অনেক বছর পর তারাও হয়তোবা তাদের স্বাধীনতা ফিরে পেয়েছে। সুস্থ্যতার জন্যই আজ পুরো পৃথিবী লক ডাউন, ব্যবসা-বানিজ্য, শিক্ষা, শিল্প কারখানা এমনকি বিয়ে সাধিও আজ বন্ধ হয়ে গেছে সুস্থ্যতার জন্য, বাচার জন্য।

china wuhan like a ghostচায়নার ব্যস্ততম নগরী বর্তমানে ভূতের শহর বলে মনে হয়

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি:

পৃথিবীতে পাকৃতিক বিপর্যয় গুলোও কমে আসতে পারে। দূষিত বায়ূর কারণে নীল আকাশ প্রায় ঘোলাটে অবস্থা থেকে মুক্ত হয়েছে। চীনের আকাশে চিনারা নীলের স্বচ্ছতা দেখল অনেক বছর পর।

 

পাপাচার থেকে ফিরে আসা ও ইবাদতে মশগুল হওয়া:

আমরা মানুষ জাতি সৃষ্টির সেরা জীব। অথচ আমরা এমন কোন অপরাধ নেই যা পৃথিবীতে ঘটাইনি। প্রতিনিয়ত সকল প্রকার অন্যায়ের মাত্রা এতো পরিমান বৃদ্ধি পেয়েছিল যে, এই মানুষ জাতিই বিশ্বাস হারাচ্ছিল নিজেদের উপর। একটি মাত্র উপসর্গ যা খালি চোখেও দেখা যায় না, অদৃশ্য এই জীবানু দিয়েই সৃষ্টিকর্তা বুঝিয়ে দিলেন মানুষ নয়, আমিই পালনকর্তা, তোমরা নও আমিই মহাশক্তিশালী, আমিই জীবন ও মৃত্যু দিয়ে থাকি, আমারই হাতের ইশারায় সারা দুনিয়া পরিচালিত হয়, অতএব এখনো সময় আছে যাদের বিবেক আছে তোমরা বুঝ গ্রহন কর, শিক্ষা নাও, কারোর কোনো ক্ষমতা নেই, সকল ক্ষমতা একমাত্র আমার, সুতরাং আমার ইবাদত করো। হয়তো সৃষ্টিকর্তা এটাই চান আমাদের কাছে।

prayer to allah

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা:

অযথা বাহিরে ঘুরাঘুরি না করে ঘরেই অবস্থান করতে হবে। বারবার অন্তত কয়েক মিনিট পর পর একটু একটু করে হলেও পানি পান করুন। যখন তখন ভুলেও চোখ, নাক এবং মুখে হাত দেবেন না । অন্য কারোর সাথে হাত মিলানো থেকে বিরত থাকুন।

no hand shake

খাওয়া দাওয়ার ব্যাপারে সতর্কতা সৃষ্টি করে এবং পরিস্কার পরিচ্ছন্নত বৃদ্ধি করে:

যেখানে সেখানে কিছু খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। সর্বদা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। খাওয়ার পূর্বে আপনার হাত সাবান বা হ্যান্ড ওয়াস দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে নিন, তারপর খাবার গ্রহণ করুন।

hand wash and take food

পরিবারের প্রত্যেকের পোশাকাধি আলাদা রাখুন। যিনি বাহিরে প্রয়োজনে বের হন তিনি সর্বোচ্চ সতর্ক থাকুন। আপনার কোন জিনিস যেন অন্য কেউ স্পর্শ না করেন । আপনার মোবাইল, ল্যাপটপ, বাজার থেকে নিয়ে আসা যে কোন জিনিস আলাদা রাখুন। ভাল ভাবে জেনে নিন হাঁচি, কাশি ও স্পর্শের মাধ্যমেই এই করোনা ভাইরাস একে অন্যের শরীরে প্রবেশ করে। তাই স্বাস্থ্য বিধি বেশি বেশি দেখুন এবং মেনে চলুন। সচেতনতা ও সাবধানতাই আপনাকে আমাকে, আমাদের পরিবারকে, সমাজ ও রাষ্ট্রকে করোনা ভাইরাসের বিস্তার থেকে মুক্ত রাখতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ মেনে চলুন, প্রতিনিয়ত চোখ রাখুন বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর সমূহে।

 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক স্বাস্থ্য বিধিগুলোর ভিডিও দেখুন, সচেতন হউন।

Lock Down for coronavirus protection

 

অতএব সচেতন থাকতে হবে, নিজে বাঁচতে হবে পরিবার, সমাজ তথা রাষ্ট্র ও বিশ্বকে বাচাতে হবে। বাংলাদেশে সরকার বর্তমানে করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছেন। সমস্ত তথ্য আপডেট করছেন। ওয়েব সাইটে প্রকাশিত হচ্ছে সকল নতুন নতুন তথ্য এবং প্রকাশিত হচ্ছে করোনা ভাইরাসের সচেতনতামূলক ফিচার।

করোনাভাইরাস কিভাবে ছড়ায় এর একটি ভিডিও

কিভাবে সচেতন থাকবেন একটি ভিডিও লিংক দেওয়া হলো একবার দেখে নিন।

 

হাত ধোয়ার সঠিক পদ্ধতির ছোট্ট ভিডিও:

 

করোনা ভাইরাস হেল্প লাইন

ন্যাশনাল কল সেন্টার-৩৩৩,

স্বাস্থ্য বাতায়ন-১৬২৬৩

আইইডিসিআর-১০৬৫৫

বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন-০৯৬১১৬৭৭৭৭৭

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়না্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট:

+৮৮০ ১৯৪৪৩৩৩২২২

+৮৮০ ১৯৩৭০০০০১১

+৮৮০ ১৯৩৭১১০০১১

+৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৪

+৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৫

যোগাযোগের অন্যান্য নম্বর পেতে ভিজিট করুন-অন্যান্য কল-সেন্টার

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর ও প্রতিদিনের ব্রিফিং গুলো দেখতে এই লিংকে ক্লিক করুন এবং প্রেস রিলিজ গুলো দেখুন

বাংলাদেশের যে সকল হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের চিকিৎসা পাওয়া যাবে:

corona virus health center in bd

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় জনস্বার্থে আইনের প্রয়োগ বিষয়ে সকলের অবগত থাকা খুবই জরুরী । তাই নিচের সরকারী বিধিটি পড়ুন এবং সচেতন থাকুন ।

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রতিরোধে সরকারী নীতিমালা

 

2 thoughts on “বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সর্বশেষ খবর । উপসর্গ, প্রতিকার ও চিকিৎসা

Comments are closed.